ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো? | ফ্রিল্যান্সার হওয়ার জন্য যে তথ্যগুলো জানতেই হবে।

by | Jun 8, 2021 | Tips & Tricks | 0 comments

একদম নতুনদের জন্য আমার আজকের এই লেখা। লেখা টা একটু বড় হবে আশাকরি মনোযোগ সহকারে পুরো লেখাটি পড়বেন।  তাহলে  ফ্রিল্যান্সার হওয়ার সকল তথ্য  একসাথে জানতে পারবেন। 

ইদানিং অনেকেই কিভাবে অনলাইন থেকে আয় করা যায় বা ফ্রিল্যান্সার হওয়া যায়, সেসব বিষয় নিয়ে জানতে চাচ্ছে, তো চলুন আজকে ফ্রিল্যান্সার হওয়ার A to Z  তথ্য জেনে নেই ।

ফ্রিল্যান্সার হতে গেলে বা অনলাইনে আয় করার জন্য আমাদের অনেকগুলো বিষয় মাথায় রাখতে হবে । অনেকে মনে করে যে আর ফ্রিল্যান্সাররা খুব সহজেই ইনকাম করে বা অনলাইনে ইনকাম করা খুব সহজ, আসলে মানুষ যতটা সহজ ভাবে ঠিক ততটা সহজ না আবার খুব কঠিন ও না । 

অনেকেই ইউটিউবে ভিডিওতে দেখেছেন 5 মিনিটে 500 ডলার ইনকাম বা 1 মিনিটে 200 ডলার ইনকাম , এই বিষয়টা আসলে একেবারে মিথ্যা নয় । পাঁচ মিনিটে 500 ডলার বা 200 ডলার টাকা ইনকাম করা যায় । কিন্তু ইনকাম করার Process টি ঐ ব্যক্তি  5 মিনিটে অর্জন করে নাই অর্থাৎ এই অভিজ্ঞতা অর্জন করার জন্য তার পেছনে রয়েছে তার  দীর্ঘদিনের পরিশ্রম এবং অভিজ্ঞতা । তাই বলে আপনি নতুন অবস্থায় 5 মিনিটে 500 ডলার ইনকাম করে ফেলবেন এটা যদি ভেবে থাকেন তাহলে আপনি ভুল ভাবছেন। 

কিভাবে ফ্রিল্যান্সার হব? 

ফ্রিল্যান্সার হতে হলে অবশ্যই প্রথমে যে কোন একটা বিষয় ভালোভাবে  শিখতে হবে । অর্থাৎ নির্দিষ্ট একটা টপিকের উপর আপনাকে দক্ষ হতে হবে যেমন ধরুন গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং,এপ ডেভেলপমেন্ট ইত্যাদি। কোনরকম ভাবে কিছু শিখে আপনি অনলাইনে কাজ করতে পারবেন না। 

এই কাজগুলো আমি কোথায় থেকে শিখব?

প্রথমে যেকোন একটি টপিক বেছে নিতে হবে। তারপর এই টপিকের উপর গুগল বা ইউটিউবে কিছু আর্টিকেল বা ভিডিও দেখুন ।  কিছু আর্টিকেল পড়লে বা ভিডিও দেখলেই , কিভাবে শিখতে হবে ,আপনার অনেকটা ধারণা হয়ে যাবে। তাছাড়া এরকম অনেক ভিডিও আপনি ইউটিউবে ফ্রিতে পাবেন,সেগুলো দেখে দেখে অনেক কিছু শিখতে পারবেন । 

তারপরও যদি আপনি মনে করেন যে ইউটিউব থেকে খুব বেশি শিখতে পারবেন না, তাহলে আপনি কোন প্রতিষ্ঠান বা অভিজ্ঞ কারো কাছ থেকে ঐ বিষয়ের উপর পূর্ণ ধারণা নিতে পারেন । 

তবে কোনো প্রতিষ্ঠান বা মেন্টর বাছাই করার আগে অবশ্যই মাথায় রাখবেন যেন আপনি প্রতারিত না হন । ইদানিং অনেক শোনা যাচ্ছে যে মানুষ অনলাইনে বিভিন্ন কোর্স করে প্রতারিত হচ্ছে । 

এমন কারো কাছ থেকে শেখার চেষ্টা করুন যিনি অনলাইনে বর্তমানে কাজ করছেন এবং আপনাকে হাতে কলমে ঐ বিষয়টা ভালোভাবে শেখাতে পারবেন।

শত শত কাজের মধ্যে আমি কোন কাজটি শিখবো?

এই সিদ্ধান্তটা খুব গুরুত্বপূর্ণ।  কোন একটি কাজ বেছে নেওয়ার আগে আপনাকে এই প্রশ্নের উত্তর গুলো জেনে নিতে হবে যেমন: কোন বিষয়ের প্রতি খুব বেশি আগ্রহ?, কোন কাজটি করতে আপনার একদমই অলসতা বা ক্লান্তি লাগে না? কোন কাজটির জন্য আপনি যেকোনো কিছু ত্যাগ স্বীকার করতে ও রাজি ?

নিজেকে এই প্রশ্নগুলো করুন আশা করি আপনি উত্তর পেয়ে যাবেন। 

এমন একটি কাজ বাছাই করার চেষ্টা করুন যেটি আপনি অনেকদিন ধরে করছেন অথবা অনেকদিন ধরে এই কাজটি সম্পর্কে জানেন। কোন বড় ভাইয়ের কথায় বা লোভে পড়ে কোন কিছু বাছাই করতে যাবেন না। যেকোনো একটি কাজ বাছাই করার আগেই এই কাজটির সুবিধা-অসুবিধা ,ভবিষ্যৎ কেমন ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে তারপর সিদ্ধান্ত নিন। 

ফ্রিল্যান্সার হওয়ার কিছু সুবিধা: 

  • অনেক টাকা ইনকাম করা যায় অর্থাৎ আপনার ইনকামের কোন নির্দিষ্ট সীমা থাকবে না । সরকারি চাকরি ক্ষেত্রে দেখা যায় 20 থেকে 30 হাজার বা একটা নির্দিষ্ট  পরিমাণ ইনকাম থাকে, এর বাইরে তিনি ইনকাম করতে পারেন না। কিন্তু আপনি যদি ফ্রিল্যান্সার হোন প্রতিমাসে আপনার ইনকাম ধীরে ধীরে বাড়তে শুরু করবে। 
  • নিজের ইচ্ছে মত কাজ করা যায়। অর্থাৎ আপনি চাইলে কাজ করবেন, না চাইলে কাজ করবেন না। 
  • পছন্দের মানুষের সাথে কাজ করতে পারবেন। যাদের সাথে কাজ করতে ভালো লাগবে না আপনি তাদেরকে এড়িয়ে চলতে পারবেন। 
  • ঘরে বসেই কাজ করতে পারবেন । এই কাজ করার জন্য কোথাও যেতে হবে না ।
  • যেহেতু ভালো একটা ইনকাম করবেন তাই আপনার পরিবার এবং ব্যক্তিগতভাবে আপনি ও অনেক ভালো ভাবে জীবন যাপন করতে পারবেন।
  •  যেহেতু আপনি বিদেশিদের সাথে কাজ করবেন তাই বিদেশী অনেক গুণী মানুষদের সাথে কাজ করার সুযোগ হবে। এবং অনেক নতুন কিছু শেখার একটা সুযোগ তৈরি হবে।
  • যদি ভাল একটা ইনকাম করার সুযোগ তৈরি করতে পারেন। এই টাকা দিয়ে আপনি পরবর্তীতে ভালো বিজনেস প্রতিষ্ঠা করতে পারবেন। 
  • নিজের পরিবারের মানুষ সহ অন্যান্য আত্মীয়-স্বজনদেরকে এই কাজ আপনি সহজেই শিখাতে পারবেন। তাদেরকে ও আপনি আর্থিকভাবে সচ্ছল করতে পারবেন। 

ফ্রিল্যান্সার হওয়ার কিছু অসুবিধা: 

  • যেহেতু সারাদিন ঘরে বসে কাজ করতে হয়, তাই  অনেক সময় শারীরিক নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে যেমন চোখের সমস্যা, কোমর ব্যথা,  ঘাড় ব্যাথা ইত্যাদি। তবে আপনি যদি নিয়মিত ব্যায়াম এবং নিয়ম মেনে সব কাজ করেন তাহলে এরকম খুব একটা সমস্যা হওয়ার কথা না।
  • দিনে বা রাতে যে কোন সময় কাজে বসতে হতে পারে। নতুন অবস্থায় বেশ কিছুদিন রাত জেগে কাজ করা লাগবে।  আপনার যদি রাত জাগার অভ্যাস না থাকে তাহলে এই কাজ আপনার জন্য না।
  •  মাঝে মাঝে খারাপ কিছু ক্লায়েন্ট খুব প্যারা দিতে পারে, যা  অনেক সময় সহ্যের বাইরে চলে যায়। 
  • সবসময়ই এই কাজে লেগে থাকতে হবে।  কোন কারণে দীর্ঘ বিরতিতে গেলে পরবর্তীতে  কাজ পেতে অসুবিধা হতে পারে।
  • সবসময় বেশি ইনকাম না ও হতে পারে। 
  • বাইরে ঘোরাঘুরি, আড্ডা বাজি অনেকটা কমিয়ে দিতে হবে ।

ফ্রিল্যান্সার হওয়ার জন্য কি কি গুন থাকতে হবে?

  • প্রচুর ধৈর্য থাকতে হবে।
  • নতুন নতুন জিনিস শেখার আগ্রহ থাকতে হবে।
  • যেকোনো সময় কাজ করার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।
  • ইংরেজিতে মেসেজিং করা বা যোগাযোগ করার জন্য ভালো দক্ষতা থাকতে হবে।
  • কম্পিউটারের সামনে বসে দীর্ঘ সময় কাজ করার ইচ্ছা থাকতে হবে। 

আরো পড়ুন: বাঙ্গালী ও বিদেশী মানুষের আচার আচরণের মধ্যে কিছু পার্থক্য।

কাদের জন্য ফ্রিল্যান্সিং পেশা নয়:

  • যারা অল্প সময়ে টাকা ইনকাম করতে চান। 
  • যারা কাজের চেয়ে টাকা কে বেশি মূল্যায়ন করেন।
  • যাদের রাগ বেশি, বা  ধৈর্য শক্তি একদমই কম।
  • যারা বিভিন্ন ট্রেনিং সেন্টারের লোভী বিজ্ঞাপন দেখে এই পেশায় আসতে চাচ্ছেন।
  • যারা সরকারি চাকরি বা অন্য চাকরির পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং করতে চাচ্ছেন।
  • যারা ফ্রিল্যান্সিং বিষয়টাকে খুব সহজ ভাবছেন।
  • যারা কিছু না বুঝেই আরেকজনের ইনকাম দেখে লোভে পরে এই পেশায় আসতে চাচ্ছেন।
  • যারা নিজের সিদ্ধান্ত নিজে নিতে পারেন না। 
  • যারা নিজের কোন বিষয়ের প্রতি প্রচুর আগ্রহ সেটা একদমই বুঝতে পারেন না।
  • যারা প্রতিমুহূর্তে সিদ্ধান্ত বদল করেন।

আজকের লেখাটি আপনার কেমন লাগলো কমেন্ট করে জানাবেন এবং ভালো লাগলে বন্ধুদের সাথে অবশ্যই শেয়ার করবেন।  ধন্যবাদ। 

Let’s Get Started

Ready to make a real change? Let’s get to work!